ব্যবহারকারীদের সুবিধার ভিত্তিতে সেরা ১০ টি ভিডিও এডিটিং সফটওয়্যার

আসসালামু আলাইকুম, পাঠক।  আশা করি সবাই ভাল আছেন।  বর্তমান সময়ের সাথে সাথে ব্লগিং এর চাহিদা বেড়ে গিয়েছে।  অনেকেই আছেন এই লাইনে সম্পূর্ণভাবে নতুন। তখন তাদেরকে বিভিন্ন কিছুই শিখতে হয় জানতে হয়।  আজকের পোস্টটি তাদের জন্য যারা ভিডিওব্লগিং এ আগ্রহী এবং ভিডিও এডিট করার জন্য সহজ ইউজার ফ্রেন্ডলি সফটওয়্যার করছেন।

তাদের জন্য আশা করছি সেরা দশটি ভিডিও এডিটিং সফটওয়্যার আর্টিকেলটি কাজে দিবে।  আমরা ব্যবহারকারীদের উপর ভিত্তি করে ১০ ভিডিও এডিটিং সফটওয়্যার নির্বাচন করেছি। আশা করি পোস্টটি আপনাদের ভালো লাগবে।  চলুন কথা না বাড়িয়ে শুরু করা যাক।

ভিডিও এডিটিং সফটওয়্যার কেন প্রয়োজন ?

আমার ব্যক্তিগত কোনো ভিডিও করলে তার হয়তো ‘র’ ফাইলটি রেখে দেই। কিন্তু যখন আপনি প্রফেশনালভাবে এই ভিডিওটি  অন্যদের মাঝে ছড়িয়ে দিবেন অথবা এলআইসি ক্যারিয়ার করবেন তখন কিন্তু আপনার ভিডিও এডিটিং করা খুবই প্রয়োজনীয় এবং বাঞ্ছনীয়।  ভিডিওর সৌন্দর্য ফুটিয়ে তুলতে ভিডিও এডিটিং এর গুরুত্ব অপরিসীম।  আপনি আপনার অডিয়েন্সের কাছে পৌঁছাতে ভিডিও এডিটিং লাগবেই। কেননা আপনি চিন্তা করুন, আমরা কি হাই কোয়ালিটি পূর্ণ ভিডিও দেখি নাকি   লো কোয়ালিটি ভিডিও দেখি?

নিশ্চয়ই আমরা হাই কোয়ালিটি ভিডিও দেখতে বেশি স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করি!  তাই আপনার ভিডিও যত কোয়ালিটিফুল হবে ততই আপনি গ্রাহকের কাছে সহজে পৌঁছাতে পারবেন। আমাদের ভিডিও গুলো  একেবারেই করে ফেলতে পারে নাই। ব্লগিং করে সেটাকে খন্ড খন্ড অনেকগুলো ভিডিও ক্লিপ থাকে সেগুলো কে ধারাবাহিক ভাবে সাজিয়ে অডিয়েন্সের কাছে উপস্থাপন করতে হয় সে কাজটা কিন্তু আপনাকে ভিডিও এডিটিং সফটওয়্যার এর মাধ্যমে করতে হবে।

 

সেরা ১০ টি ভিডিও এডিটিং সফটওয়্যার 

এখন আমরা কথা বলবো সেরা দশটি  ভিডিও এডিটিং সফটওয়্যার নিয়ে। আপনাদের সুবিধার উপর ভিত্তি করে আমরা সহজ থেকে শুরু করে কঠিনতম পর্যায়ে দিকে এগোবো।মনে রাখবেন ইউজার ফ্রেন্ডলি সফটওয়্যারগুলোতে তুলনামূলক কিছুটা সুবিধা কম পাওয়া যায়। এবং মেনুয়ালি গুলোতে যেগুলোতে ফাংশনালিটি সম্পর্কিত কাজ থাকে সেগুলোতে সুবিধা বেশি পাওয়া যায়। চলুন শুরু করা যাক:

১. Filmora

ওয়ান্ডারশেয়ারের তৈরিকৃত Filmora বর্তমানে খুবই জনপ্রিয় একটি ভিডিও এডিটিং সফটওয়্যার। সবচেয়ে বড় সুবিধা হচ্ছে এসব সেটিকে আপনি সহজে ম্যানেজ করতে পারবেন। এই সফটওয়্যার দিয়ে আপনি বিডিতে সর্বোচ্চ এক থেকে দুই ঘণ্টার মধ্যেই ।যারা একেবারেই ভিডিও এডিটিং নতুন তাদের জন্য সফটওয়্যার টি সেরা হবে বলে আমি মনে করি। আমি নিজেও প্রথমদিকেই Filmora দিয়ে ভিডিও এডিটিং করতাম। 

আরো জানুন

২. Camtasia Studio 9

Camtasia একটি ইউজার ফ্রেন্ডলি ভিডিও এডিটিং সফটওয়্যার। আপনি যদি নতুন হন তাহলে আপনার জন্য এই সফটওয়্যারটি সাজেস্ট থাকবে। কারণ এর ইন্টারফেস গুলো মোটামুটি ইউজার ফ্রেন্ডলি এবং সহজেই ম্যানেজ করা যায়।

আরো জানুন

৩. Adobe Premiere Elements

এটি একটি এডোবি সফটওয়্যার । এটি মুলত যারা বিগেনার তাদেরকে  ফোকাস করে তৈরি করা হয়েছে । বেসিক কাজের জন্য সফটওয়্যার টি অসাধারণ হবে। তবে প্রফেশনাল কাজের জন্য আমি আপনাকে সাজেস্ট করবো এডোবি প্রিমিয়ার প্রো সিসি ব্যবহার করতে।

আরো জানুন

৪. Adobe Premiere Pro CC

আপনি যদি ভিডিও এডিটিং শিখতে চান তাহলে আমি চোখ বন্ধ করে আপনাকে সাজেস্ট করব  Adobe Premiere Pro CC  শিখতে। কারণ এক কথায় অসাধারন একটি সফটওয়্যার হচ্ছে এই Adobe Premiere Pro CC। আপনি যদি ভিডিও এডিটিংকে ফ্যাশন হিসেবে নিতে চান তাহলে এই সফটওয়্যার টি অনেক কাজে দিবে। এছাড়াও আরো কিছু সফটওয়্যার আছে সে সম্পর্কে আমরা নিচে বলছি ।  ২০০৩ সালে অ্যাডোব ক্রিয়েটিভ ক্লাউডের অধীনে অ্যাডোব সিস্টেমস লঞ্চ করে Adobe Premiere Pro CC সফটওয়্যারটি। সফটওয়্যারটিতে ভিডিও ট্রানজিশন হতে শুরু করে ভিডিও ইফেক্ট, অডিও ইফেক্ট, এটেস্ট ম্যান হেয়ার, কাটিং লেয়ার ইফেক্ট, ক্লিপ স্পিড,  real-time রামদাসহ আরো অসংখ্য  ফিচার রয়েছে ।  আপনার ভিডিওতে অনেক আকর্ষণীয় করে তুলবে। তাই বলব আপনি যদি বিডি হিসেবে গড়তে চান অথবা আপনার ভিডিওটা আরো আকর্ষণীয় করে তুলতে চান তাহলে বেস্ট একটা সফটওয়্যার হচ্ছে এই সফটওয়্যার টি।

আরো জানুন

৫. Sony Vegas

Sony Vegas এ সফটওয়্যারটির বিশেষ সুবিধা হচ্ছে এর মাধ্যমে আপনি বিভিন্ন প্লাগিন ব্যবহার করে আকর্ষণীয় স্লাইডশো বানাতে পারবেন। এছাড়া বিভিন্ন ধরনের  এফেক্ট তৈরি করতে পারবেন। এটি এমন একটি ইউজার ফ্রেন্ডলি যদি আপনি বেসিক সম্পর্কে জানেন। এ সফটওয়ারটিতে  মোশন ট্রাকিং,  বিশেষ করে৩৬০  ডিগ্রী ভিডিও এডিটিং,  অটোমেটিক সাবটাইটেল ফিউশন,  মৌসুমী,  অডিও মিক্সিং,  এফএক্স  মাক্সিং  সহ আরো অসংখ্য সুবিধা রয়েছে।

ভিডিও স্টেবলাইজার, মোশন ট্র্যাকিং, ৩৬০° ভিডিও এডিটিং, অটোমেটিক সাবটাইটেল ক্রিয়েশন, মাল্টি-ক্যাম এডিটিং, অডিও মিক্সিং, এফএক্স মাস্কিং সহ অসংখ্য ফিচার রয়েছে।

আরো জানুন

৬. Final Cut Pro

ম্যাক্রোমিডিয়ার তৈরিকৃত সফটওয়ারটি হলেও এটি বর্তমানে অ্যাপেলের অধীনস্থ ইনকরর্পোরেটের  আওতায় আছে । Final Cut Pro অসাধারণ একটি ভিডিও এডিটিং সফটওয়্যার। প্রফেশনাল ভিডিও এডিটিং এর জন্য সব ফিচার রয়েছে এই Final Cut Pro সফটওয়্যারটিতে। বিশেষ করে এসব ক্রিকেটে বেশকিছু ফ্রিজ ফিচার রয়েছে যা আপনাকে অবাক করতে বাধ্য করবে। সব মিলিয়ে অসাধারন একটি সফটওয়্যার ভিডিও  এডিটিং জন্য।

আরো জানুন

৭. CyberLink PowerDirector

CyberLink PowerDirector সফটওয়্যারটি ইউজার ফ্রেন্ডলি দিক থেকে খুবই সিম্পল। আপনি বিগেনার হন কিংবা প্রফেশনাল হন যেকোনো মানুষের ভিডিও তৈরি করতে পারবেন এই সফটওয়্যারটির মাধ্যমে।  সফটওয়্যারটিতে কাস্টমাইজেবল ডিজাইন স্কুল হতে শুরু করে ভিডিও ক্লোজার,  মোশন ট্রাকিং,   মাল্টি-ক্যাম এডিটিং  সহ অসংখ্য ফিচার রয়েছে। 

আরো জানুন

৮. Camtasia Studio

এ সফটওয়্যার বিশেষত্ব হচ্ছে দুই অংশ নিয়ে কাজ করতে পারবেন।   এই সফটওয়্যার টি মূলত দুটি অংশে বিভক্ত ।  সেগুলো হলো ক্যামটাসিয়া রেকর্ডার ও ক্যামটাসিয়া ভিডিও।  আরে শব্দটি একটি ইউজার ফ্রেন্ডলি সফটওয়্যার এ শব্দটি মূলত যারা টিউটোরিয়াল ভিডিও তৈরি করেন তাদের জন্য খুবই উপকারী। এবং এই সফটওয়্যারটির জনপ্রিয়তা দিন দিন বাড়ছে । এক পরিসংখ্যানে উঠে এসেছে বিশ্বব্যাপি প্রায় ২৪  মিলিয়নের বেশি মানুষ এটি ব্যবহার করেছে। 

আরো জানুন

৯. Shotcut Video Editor

নাম শুনে বুঝতে পারতেন সফটওয়্যার টা আসলে কি ধরনের।  সফটওয়্যার নাম যে রকম কাজ সেরকম। মানে আপনি সহজেই এ সফটওয়্যার দিয়ে ভিডিও এডিটিং করতে পারবেন। মোটকথা এটিও একটি ইউজার ফ্রেন্ডলি একটা ভিডিও এডিটিং সফটওয়্যার। বিগিনার হিসেবে নিজের কাজ চালিয়ে নেওয়ার মতো ভিডিও এডিট করতে পারবেন। 

আরো জানুন

১০. Corel VideoStudio Ultimate

এটি একটি ইউজার ফ্রেন্ডলি বিডিটি সফটওয়্যার।  ইন্টারফেস অনেকটা এডোবি প্রিমিয়ার এলিমেন্ট এর মতই। আরে সফটওয়্যার তৈরি করা হয়েছে।  তবে কাজের তুলনায় এর প্রিমিয়াম এর দাম টা আমার কাছে কিছুটা বেশী লেগেছে। তবে অফ ইউজার ফ্রেন্ডলি দিক থেকে আপনি বিগিনার হিসেবে সফটওয়্যার ব্যবহার করতে পারেন। এসব নতুন নতুন অনেক ফিচার রয়েছে আপনার কাছে আরও সহজ করে দিবে।

আরো জানুন

 আজ এ পর্যন্তই। আশা করছি আপনাদের কাজ দিবে। এছাড়া আপনাদের কোন জিজ্ঞাসা থাকলে অবশ্যই আমাদের করতে পারেন। আমরা সর্বোচ্চ চেষ্টা করবো আপনার জিজ্ঞাসার উত্তর দিতে । এছাড়াও সেরা দশটি অডিও এডিটিং সফটওয়্যার সম্পর্কে জানতে এখানে ক্লিক করুন।

 

Leave a Comment